ত্রিশের পরে মা হওয়ার জটিলতা ও করণীয়


দেশে বাল্যবিবাহের হার এখনো অনেক বেশি। তবু অনেক নারীই ৩০ বছর বা তারপরে সন্তান নেওয়ার পরিকল্পনা করেন। পড়াশোনা, ক্যারিয়ার, সেশনজট নানা কিছু এর জন্য দায়ী। কিন্তু বেশি বয়সে সন্তান নেওয়ার ঝুঁকিগুলো জানা থাকলে প্রস্তুতি নেওয়া সহজ হয়।

কী জটিলতা

মেয়েদের বয়স যত বাড়তে থাকে, ডিম্বাশয়ে ডিম্বাণুর সংখ্যা ও গুণগত মান তত হ্রাস পেতে থাকে। ফলে সন্তান ধারণেরÿক্ষমতা কমতে থাকে। বেশি বয়স পর্যন্ত অপেক্ষা করলে কেউ বন্ধ্যাত্ব সমস্যায় পরতে পারেন। গর্ভধারণের পর মিসক্যারেজের আশঙ্কা থাকে। বেশি বয়সে, বিশেষত ৩৫ বছরের পরে যাঁরা মা হচ্ছেন তাঁদের ডাউন সিনড্রোম বা অন্যান্য জন্মগত ত্রুটিসম্পন্ন শিশু জন্ম নেওয়ার ঝুঁকি বেশি। তা ছাড়া বয়স বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে মেয়েদের ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, থাইরয়েড সমস্যা হতে পারে এবং সে কারণে গর্ভাবস্থায় নানা জটিলতাও হতে পারে।


করণীয়

  • ত্রিশের পরে মা হতে চাইলে গর্ভপূর্ববর্তী চেকআপ করিয়ে একজন প্রসূতিবিশেষজ্ঞকে দেখিয়ে তাঁর পরামর্শমতো গর্ভধারণ করতে হবে। স্বামীর বয়সও এখানে গুরুত্বপূর্ণ।
  • ফলিক এসিড একটু আগে থেকেই শুরু করুন।
  • ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, থাইরয়েড সমস্যা, অ্যানিমিয়া স্ক্রিনিং করুন। সমস্যা থাকলে চিকিৎসা নিন।
  • অনেক ক্ষেত্রে অ্যাসপিরিন, প্রোজেসটেরন সাপোর্ট বা ভিটামিন বি, সি লাগতে পারে।
  • বাচ্চার ক্ষেত্রে জন্মগত ত্রুটি দেখার জন্য ১২-১৩ সপ্তাহে ডাউন স্ক্রিনিং এবং ২০-২২ সপ্তাহে অ্যানোমেলি স্ক্রিনিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
সূত্রঃ সহযোগী অধ্যাপক, বন্ধ্যাত্ব বিশেষজ্ঞ, আনোয়ার খান মর্ডান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

ত্রিশের পর মা হওয়ার অভিজ্ঞতা


সাধারণভাবে ২৫ থেকে ৩০ বছর হলো প্রথম মা হওয়ার উপযুক্ত সময়। তবে বিয়ের পরে নানা কারণে সময়মতো মা হতে পারেননি। চাকরি, সংসার ও নানা জটিলতার কারণে সময় কখন পেরিয়ে গেছে হয়তো বুঝতেও পারেননি। যখন ভাবলেন, তখন কিছুটা দেরি হয়ে গেছে। বয়স ৩৪ পেরিয়েছে। তাই বলে কি মা হওয়া সম্ভব নয়?

আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞানের মাধ্যমে সেটিও সম্ভব। তবে দেরিতে প্রথমবারের মতো মা হলে কিছু জটিলতা থাকে। সে জন্য আগেই যদি স্বামী-স্ত্রী নির্দিষ্ট কিছু পরীক্ষা করে রাখেন, তাহলে পরে আর দুশ্চিন্তা করতে হবে না। এই যেমন: আপনি যদি পরিকল্পনা করেন, ৩৪ বছরের পরে গর্ভধারণ করবেন, তাহলে এর আগে সব পরীক্ষা করে রাখবেন। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কারও কোনো জটিলতা থাকলে প্রাথমিক অবস্থাতেই চিকিৎসা শুরু করে দেওয়া সম্ভব।

সাধারণত ৩৪ বছর বয়সের পরে মা হলে সেটিকে বেশি বয়সের মাতৃত্ব বলা হয়। ৩৪ বছরের পরে প্রথম সন্তান ধারণ করলে প্রথম তিন মাসে গর্ভপাত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। ছয় মাসের পরে রক্তক্ষরণ হতে পারে। আবার সন্তান প্রসবের সময়ও জটিলতা থাকে। দেখা যায়, ৩৪ বছর বয়সের পরে পেশির সংকোচন-প্রসারণ কমে যায়, নমনীয়তা কম হয়। পেশি শক্ত হয়ে যায়। তাই সাধারণভাবে সন্তান প্রসব (নরমাল ডেলিভারি) কম হয়। এ কারণে অস্ত্রোপচারই করতে হয়, যা সিজারিয়ান নামে পরিচিত। এ ছাড়া এ সময়ে জরায়ুতে টিউমার হওয়ার আশঙ্কা থাকে এবং ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ হতে পারে। সাধারণত গর্ভধারণের ছয় মাস পর থেকে উচ্চ রক্তচাপ দেখা দেয়। অনেক সময় খিঁচুনিও হয়। আসলে যত বয়স হতে থাকে, শরীরে রোগ হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়।

বেশি বয়সের মায়েরা অনেক সময় সন্তান বিকলাঙ্গ বা প্রতিবন্ধী হওয়ার আশঙ্কা করেন। আসলে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এসব সম্ভাবনাও বেড়ে যায়। এ জন্য সাধারণ কিছু পরীক্ষা যেমন অ্যালফা ফেটো প্রোটিন-এএফপি, এইচসিজি হরমোন কী পরিমাণ আছে, তা পরীক্ষা করা যেতে পারে। এসব হরমোন গর্ভে থাকা বাচ্চা থেকে তৈরি হয়, এগুলো যদি অস্বাভাবিক বেড়ে যায়, তখন আমরা ধারণা করি, বাচ্চার সমস্যা থাকতে পারে। তবে আরও নির্দিষ্টভাবে বোঝার জন্য অ্যামনিয়োসিনথেসিস ও কোরিওনিক ভিলি পরীক্ষা করা যেতে পারে। সমস্যা বুঝলে আগেই চিকিৎসা শুরু করা যায়।
৭০০ থেকে ৮০০টির মধ্যে একটি অস্বাভাবিক শিশু জন্মায়। এ ঘটনা যেকোনো বয়সের মায়ের ক্ষেত্রে হতে পারে। বেশি বয়সের মায়েদের ক্ষেত্রে অস্ত্রোপচারের দিকে ঝোঁক থাকে বেশি। তাঁরা কোনো রকমের ঝুঁকি নিতে চান না।

বেশি বয়স হলে বাচ্চা একটু উল্টে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে বা আড়াআড়ি হয়ে থাকে। এমন সমস্যা হলে সাধারণভাবে বাচ্চা হতে সমস্যা হয়।

বেশি বয়সে মা হওয়ার ইতিবাচক দিক হলো, এই মায়েরা নিজে ও সন্তানের বিষয়ে অনেক সচেতন থাকেন। তাঁরা শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানোর উপকারিতা জানেন। সাধারণত আর্থিক সচ্ছলতা থাকে তাঁদের। স্বামী ও পরিবারের সঙ্গে ভালো বোঝাপড়াও তৈরি হয়। পেশাজীবনেও এই মায়েরা কিছুটা এগিয়ে থাকেন। তাঁদের একজন শিক্ষানবিশের মতো পরিশ্রম করতে হয় না। ফলে সন্তানের সুরক্ষায় তাঁরা সচেষ্ট থাকেন। বর্তমান বিশ্বে উন্নত চিকিৎসাব্যবস্থার কারণে বেশি বয়সে মা হওয়া তাই কোনো সমস্যা নয় এখন। মনে রাখতে হবে, সন্তান জন্মের পর সন্তানের যেমন বাড়তি যত্ন নিতে হবে, মায়েরও তেমনই। পুষ্টিকর ও সুষম খাদ্য খেতে দিতে হবে। তবে উপযুক্ত সময়ে প্রথমবারের মতো মা হলে কিছু কিছু জটিলতা এড়ানো যায়।

সূত্রঃ স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ, উইমেনস অ্যান্ড চিলড্রেনস হসপিটাল, ঢাকা

শেষ কথা: ক্যারিয়ার, ব্যস্ত জীবন, আর্থিক সচ্ছলতা যেমন জরুরি, ঠিক তেমনি একটি সুখী পরিবারও জীবনের অপরিহার্য একটি অংশ। তাই ত্রিশের আগে প্রথম সন্তান নিয়ে নেওয়া ভালো। আর কোনো কারণে দেরি হয়েই গেলে আগে থেকে সতর্ক থাকলে বিপদ এড়ানো যায়।

সোর্স ঃ প্রথম আলো

Load comments